পাকা আম আমাদের যে উপকার করে

আম আমাদের অতি পরিচিত একটি ফল।আমাদের দেশের অনেক অঞ্চল আমের জন্য বিখ্যাত।বিশেষজ্ঞরা বলেন আম জেভাবেই খাওয়া হোক না কেন আম আপনার শরীরের উপকার করবেই।কিছু কিছু সময় কাঁচা আম আপনার শরীরের জন্য অনেক উপকারী আবার অনেক সময় পাকা আম আমাদের শরীরের জন্য উপকারী।তাই আমাদের আমের সিজনে নিয়মিত কাঁচা এবং পাকা আম উভয়ই নিয়মিত খাওয়া উচিত।আজকের এই আর্টিকেলে আমরা জানবো আমাদের অতিপরিচত ফল আমের কিছু উপকারিতা।তাহলে চলুন শুরু করা যাক-

আমাদের মাঝে অনেকেই কাঁচা আম একবারেই খেতে চান না।আবার অন্য কাউকে খেতে দেখলেও নাক সিটকান।তাঁদের জন্য একটি তথ্য বলা জরুরী।আপনি কি জানেন কাঁচা আমে কি কি উপদান থাকে?যদি জেনে থাকেন তাহলে ভালো আর যদি আপনার জানা না থাকে তাহলে জেজে নিন।কাঁচা আমে প্রচুর পরিমানে ক্যারোটিন ও ভিটামিনএ থাকে যা আমাদের চোখ ভালো রাখতে সাহায্য করে।এছারা কাঁচা আম রাত কানা হওয়া থেকে আমাদের রক্ষা করে।সর্বোপরি কাঁচা আম আমাদের চোখের জন্য অনেক উপকারী।

এছারাও আমে আছে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স যা আমাদের শরীরে অক্সিজেন এর সরবরাহ বাড়াতে সাহায্য করে এবং ঘুমের জন্য অনেক উপকার করে।এছারাও যারা আম খেতে পছন্দ করে তাঁদের শরীর থাকে সতেজ।এছারাও আমে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি থাকে।আর ভিটামিন সি আমাদের শরীরের কি কি উপকার করে আমরা সেইটা খুব ভালো করেই জানি।তবে পাকা আমের চাইতে কাঁচা আমে ভিটামিন সি বেশী থাকে।

আম আমাদের হার্ট এর সমস্যা দূর করে আমাদের হার্ট সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।কারন আমে বেটাক্যারোটিন,  ভিটামিন ই এবং সেলেনিয়াম উপাদনগুলো থাকে।আর এই উপদানসমূহ আমাদের হার্ট এর জন্য দরকারি উপাদানগুলোর মধ্য অন্যতম।

আমরা জানি যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আমাদের শরীরে বাহিরে থেকে কোন বিষক্রিয়া করতে পারে এমন উপাদানকে প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।আর আমে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিভিন্ন রকমের কান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

দাঁত, নখ, চুল এই অঙ্গসমূহ সুন্দর,সুস্থ এবং মজবুত রাখার জন্য খনিজ লবনের প্রয়োজনীয়তা অপরসিম।আর আপনি জানলে অবাক হবেন যে আমে এই খনিজ লবন বিদ্যমান।সুতরাং এই অঙ্গসমূহ ভালো রাখার জন্য হলেও আমাদের নিয়মিত আম খাওয়া উচিত।

আমাদের শরীরে যে প্রোটিন থাকে তার অনুগুলকে ভেঙ্গে ফেলার জন্য এনজাইম নামক একপ্রকার উপাদান এর প্রয়োজন পড়ে।আর আমে এই এনজাইম নামক উপাদান রয়েছে প্রচুর যা আমাদের দেহের প্রোটিনের অনুভেঙ্গে আমাদের হজম শক্তি বাড়িয়ে দেয়।

এছারাও প্রতিদিন আম খাওয়ার ফলে আমাদের দেহের ক্ষয়রোগ সেরে যায় এবং শারীরিক ঘটনে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করে।ম্যালিক অ্যাসিড, সাইট্রিক অ্যাসিড ও টারটারিক অ্যাসিড আমাদের শরীরে ক্ষার ধরে রাখতে সাহায্য করে।আমে প্রচুর পরিমানে ম্যালিক অ্যাসিড, সাইট্রিক অ্যাসিড ও টারটারিক অ্যাসিড উপদানগুলো বিদ্যমান।সুতরাং আমাদের নিয়মিত আম খাওয়া উচিত।এছারা কাঁচা আমে প্রচুর পরিমানে আয়রন থাকে যা আমাদের শরীরের রক্তসল্পতা সমস্যা দূর করতে ভূমিকা রাখে।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *